• Hello Guest ,

    *** রেজিস্ট্রেশন করার পর "Confirmation Email" না পেলে "Spam" ফোল্ডার চেক করুন। ***

সাস্টে ২২ বছর-ইয়াসমীন হক (22 Years At SUST)

sadaq

Cosmic Traveller
Uploader
Sep 16, 2013
67
1,996
Time online
2d 22h 11m
Credits
3,129
#1

সাস্টে ২২ বছর (22 Years At SUST)
লেখকঃ ইয়াসমীন হক
অনুবাদকঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল

কিছু তথ্যঃ
ধরনঃ জীবনী, পেশাগত স্মৃতিচারণ
প্রকাশনীঃ তাম্রলিপি
প্রকাশকালঃ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
পৃষ্ঠাঃ ২১৭
মূল্যঃ ৩৩৫ টাকা


প্রচ্ছদ
You must be registered for see images


আমাদের সমাজ এবং রাস্ট্রের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই কিছু না কিছু ভুল (বা সরাসরি বলা যেতে পারে ‘দূর্নীতি’) বিরাজ করছে। তবে এটি নিয়ে কথা কথা বলার সাহস (অথবা বলা উচিত “আস্পর্ধা”) বা সুযোগ সবার হয়ে ওঠে না। আর কথা বলা যতটা না দরকার তার থেকে বেশি জরুরী এসব অনিয়ম বা দূর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো। কিন্তু কয়জন পারে? আর বিষয়টা কি এতই সহজ???

শিক্ষাকে বলা হয় জাতির মেরুদন্ড, কিন্তু এই শিক্ষা যারা প্রদান করবেন সেই শিক্ষকরা সবাই কি আসলে শিক্ষক?, শিক্ষাব্যবস্থা কি আসলে সঠিকভাবে চলছে? দুটির উত্তরই হবে “না”। সবাই তা আমরা জেনেও জানি না, কেননা উচ্চপদস্থ কেউ স্বীকার করেন না, কেউ সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধান করার চেষ্টাও করেন না। কিন্তু কোন সমস্যাই সমাধানের অযোগ্য নয়, শুধু দরকার সঠিকভাবে চিহ্নিত করা আর সরল বা ঘোরালো যেখানে যেমন ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা নেওয়া।

এবার জেনে নেওয়া যাক লেখক সম্পর্কে-
You must be registered for see images

“ইয়াসমীন হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রি শেষ করে ১৯৭৬ সালে পি.এইচ.ডি করার জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন । ১৯৮৪ সালে ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটনে পি.এইচ.ডি. শেষ করে একই বিশ্ববিদ্যালয়ে পোস্ট ডক্টরাল কাজ শুরু করেন। ইয়াসমীন হক ১৯৭৮ সালে তার সহপাঠি মুহম্মদ জাফর ইকবালকে বিয়ে করেন। তাদের দুই সন্তান, নাবিল ইকবাল ও ইয়েশিম ইকবাল। তার পুত্র সন্তানের জন্মের পরপরই তিনি পোস্ট ডক্টরাল কাজ বন্ধ করে দেন। তার শিশু সন্তানেরা স্কুলে যাওয়ার উপযোগী না হওয়া পর্যন্ত বহু বছর তিনি তার সন্তানদের বড় করে তোলেন। (ছেলে নাবিল এম.আই.টি থেকে তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে পি.এইচ.ডি, করে এখন ইংল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অফ ডারহামে শিক্ষকতা করছে, মেয়ে ইয়েশিম নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটিতে সাইকোলজিতে পি.এইচ.ডি, সমাপ্ত করছে।) ইয়াসমীন হক ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশে ফিরে এসে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেটে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে যোগ দেন। তখন থেকে তিনি এখানেই আছেন, ছাত্রছাত্রীদের সময় দেয়ার পাশাপাশি গবেষণার জন্যে একটি প্রথম শ্রেণীর নন-লিনিয়ার অপটিক্স ল্যাবরেটরি গড়ে তুলছেন।”

লেখকের নাম ইয়াসমীন হক, অর্থাৎ বাঙ্গালী বলে মনে হয়, আবার বইটা অনুবাদগ্রন্থ!!! কৈফিয়ত শোনা যাক লেখকের নিজের লেখায়- “আমি বড় হয়েছি পাকিস্তানে। বাংলা না শিখে আমাকে উর্দু শিখতে হয়েছে, ইংরেজি মিডিয়াম স্কুলে পড়তে হয়েছে।” বাস্তবিকই লেখক বাংলা বলতে এবং লিখতে পারলেও তা আর দশজন সাধারন বাঙ্গালীর মত না, ইংরেজিতেই লিখতে বা মনের ভাব প্রকাশ করতে তিনি বেশি স্বাছন্দ্যবোধ করেন। তাই মূল বইটি লেখা হয় ইংরেজিতে আর বাংলায় অনুবাদ করা হয় তারপর। লেখকের মত এমন সরল স্বীকারোক্তি দেওয়ার সাহস বর্তমান সময়ে খুব কম মানুষেরই আছে।

এবার আসুন দেখা যাক ফ্ল্যাপে কি আছে-
“...ভোরবেলার শিফটে যে পুলিশেরা ছিল, তারা ডিউটি শেষ করে চলে গেছে এবং পরের শিফট তখনো আসেনি। এই সময় তিনজন তরুণ আমাদের বিল্ডিংয়ের দিকে ছুটে আসে, গার্ড ভয় পেয়ে গেটে তালা মেরে উপরে উঠে গেল । কাজেই তারা আর বাসার ভিতরে ঢুকতে পারল না। বাইরে থেকে আমাদের বিল্ডিংয়ের সামনের জানালাতে বোমা ছুড়ে মারল। আমরা বিস্ফোরণের প্রচণ্ড শব্দে ঘুম থেকে জেগে উঠেছি । একটা ভয়াবহ আতঙ্কের পরিবেশ। মনে আছে নাবিল আর ইয়েশিম তখন চিৎকার করছে। ইয়েশিম কাঁদতে কাঁদতে বলছে, “আব্বু তুমি লুকিয়ে যাও! প্লিজ লুকিয়ে যাও..." এই বইটি হচ্ছে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গল্প-কথা, শুধু যে লেখাপড়া এবং গবেষণার গল্প তা নয় একই সাথে এটি আন্তরিকতা, ত্যাগ, পরিশ্রম, দুঃখ, সন্ত্রাস, অসততা, প্রতারণা, ক্রোধ এবং সবার উপরে ব্যক্তিগত সাহসের গল্প । তরুণ শিক্ষকেরা কীভাবে এই ক্যাম্পাসটিকে প্রাণোচ্ছল করে রেখেছে তার গল্প । বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের বিচিত্র ঘটনার ভেতর কেমন করে ছাত্রছাত্রীদের অকুণ্ঠ ভালোবাসায় এই বিশ্ববিদ্যালয়টি গড়ে উঠেছে তার গল্প । ”

লেখকের ভূমিকা থেকে কিছুটা অংশ
“আমার এই লেখায় সাস্টের প্রকৃত ঘটনা প্রবাহের কিছুই ফুটিয়ে তোলা সম্ভব নয়, আমি শুধুমাত্র একটুখানি তুলে ধরেছি। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস জীবন উত্তেজনাপূর্ণ এবং প্রায় সময়ে বিচিত্র ঘটনার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। এই ঘটনাগুলোর মাঝে ভালো ঘটনা যেরকম আছে ঠিক সেরকম খারাপ ঘটনাও আছে! তরুণ শিক্ষকেরা যেরকম জীবনকে আনন্দময় করে তুলতে পারে ঠিক সেভাবে রাজনীতিতে ঝুকে পড়া বয়স্ক শিক্ষকেরা জীবনকে যন্ত্রণাময় করে তুলতে পারে। লেখার সময় যখন নেতিবাচক কোনো ঘটনাকে বর্ণনা করতে হয়েছে তখন চেষ্টা করেছি ঘটনার পাত্রপাত্রীদের নামটি গোপন রাখতে। দুর্ভাগ্যক্রমে ভাইস চ্যান্সেলরদের বেলায় সেই নিয়মটি মানা সম্ভব হয়নি তাদের নামগুলো এতো স্পষ্ট যে সেগুলো গোপন রাখার কোনো উপায়ও নেই।“
আমার সৌভাগ্য হয়েছে লেখককে সরাসরি জানার এবং তা থেকে এটা বলতে পারি এখানে লেখা ঘটনাগুলো গল্পের মত শোনালেও আসলে সবই সত্যি বরং কিছু ক্ষেত্রে কিছুটা কম করে লেখা হয়েছে। অনেকে পছন্দ করেন না লেখক এবং অনুবাদক এই দম্পতিকে, তার কারন কি তা যদি জানতে চাওয়া হয় জানি না কয়জন সঠিকভাবে উত্তর দিতে পারবেন। প্রতে্যেকেরই নিজস্ব মতামত আছে, চিন্তা চেতনা আছে। “আমার সাথে মিলে না তাই উনি ভুল” আমাদের ক্ষেত্রে বিষয়টা আসলে এমন। সর্বোপরি মানুষ ভুলের উর্ধ্বে নয়। কিন্তু তার ভুল ধরিয়ে না দিয়ে কুৎসা রটানো আসলে কোন সমাধানের পথ নয়, যদিও আমরা বাঙ্গালীরা শুধুমাত্র এটাই করে থাকি বলে আমাদের উন্নতি যতটা না হতে পারত তার কিছুই হয় না। আর প্রচার বিমুখ এই লেখকের একটি অবদানের কথা না বললেই না, তার ল্যাবের খবর কিছুদিন আগে বাংলাদেশের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এসেছে ক্যান্সার সনাক্তকরনে একটি ডিভাইস উদ্ভাবনের জন্য, যা ইউএস পেটেন্টের জন্য জমা দেওয়া হয় এবং বাংলাদেশের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য যা এই প্রথম।

বইটি পড়ার সময় কখনো হয়ত আপনার মন ঘৃণায় ভরে উঠবে, কখনো বা রোমাঞ্চিত হবেন, আবার হেসেও উঠবেন কখনো। এটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবন এবং একজন শিক্ষকের রোমাঞ্চকর জীবনের কিছু খন্ডিতাংশের চিত্র।

ভালো না লাগাঃ বইটির প্রথম কয়েকটি বাংলা সংস্করণে বানান এবং ছোটখাট ভুল রয়েছে।
বাংলাতে পড়তে গিয়ে প্রায়ই মনে হয়েছে মুহম্মদ জাফর ইকবাল এর বই পড়ছি, যা তার অনুবাদের কারনে হয়েছে, যদিও আমি ইংরেজি বইটি আগে পড়েছিলাম।

রেটিংঃ ৪.৮/৫.০০

বইটি বাংলা ও ইংরেজিতে পাওয়া যাবে যেকোন বইয়ের দোকানে বা অনলাইনে রকমারিতে-



 
Last edited:
*** ক্রেডিট বিষয়ে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।
*** ডুপ্লিকেট, অপ্রাসঙ্গিক কমেন্ট মুছে ফেলা হবে।
*** thanks, awesome, good, ভালো আপলোড, চালিয়ে যান ..... এই জাতীয় কমেন্ট না করে গঠনমুলক মন্তব্য করুন।
*** বাংলিশ কমেন্ট অ্যাপ্রুভ করা হয় না।
*** মুল পোস্ট থেকে রিপ্লাই না করে নিচে এসে কমেন্ট বক্স ব্যাবহার করুন।।
*** লিঙ্ক ডেড হলে সরাসরি আপলোডারকে মেসেজ করুন, কমেন্ট করার প্রয়োজন নেই।

Herry_Potter

Well-Known Member
May 26, 2019
83
1,873
Time online
3d 12h 26m
Credits
91
#2
অসাধারণ একটা রিভিউ।আসলে,রিভিউ নয়,,,বইটাকে অসাধারণ বলা উচিত।মুহম্মদ জাফর ইকবাল আমার সবচেয়ে প্রিয় লেখকদের মধ্যে একজন।তার লিখা প্রায় সবকটা বই অনেকবার করে পড়া হয়ে গেছে।তবে এই অনুবাদ বইটি সম্পর্কে কিছুই জানা ছিল না।
রিভিউটা পড়ে বেশ ভালো লাগল।যেকোনো স্টুডেন্ট এই বইটি পড়তে চাইবে।কেননা,আমার মনে হয়,,,বইটির বিষয়বস্তু একজন স্টুডেন্টকে তার জীবনসংগ্রামকে সঠিক পথটি বেছে নিতে,কিংবা খুজে নিতে সাহায্য করবে।
@sadaq ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ,,,এমন অসাধারণ একটা বইয়ের রিভিউ দেয়ার জন্য।রিভিউটা যথেষ্ট ভালো হয়েছে।তবে আরো কিছু বিষয় (যেমনঃ প্রকাশকাল,প্রকাশনা,মূল্য ইত্যাদি) যদি যোগ করে দিতেন,তাহলে রিভিউটি যেমন পূর্ণাঙ্গ একটা রূপ পেত,তেমনি বইটি সম্পর্কে আরো স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যেত।
 

sadaq

Cosmic Traveller
Uploader
Sep 16, 2013
67
1,996
Time online
2d 22h 11m
Credits
3,129
#3
তবে আরো কিছু বিষয় (যেমনঃ প্রকাশকাল,প্রকাশনা,মূল্য ইত্যাদি) যদি যোগ করে দিতেন
অসংখ্য ধন্যবাদ বিষয়টি মনে করিয়ে দেয়ার জন্য। আমি খেয়ালেই ছিল না, ওগুলো যে বাদ পড়ে গেছে। যোগ করে দিলাম। বইটি কিন্তু আসলে জাফর ইকবাল স্যারের না। না জানলে বলে দেই ইয়াসমিন ম্যাম স্যারের সহধর্মিনী। ব্যক্তিগত জীবনে স্যার যেমন চুপচাপ বা বলা যায় গম্ভীর- ম্যাম তার ঠিক উল্টো, প্রানোচ্ছল আর প্রয়োজনে প্রচন্ড ঘাড়ত্যাড়া (এর থেকে ভাল কোন শব্দ খুঁজে পেলাম না)। তার বইতেও তার অনেক উদাহরন পাবেন।
 

Herry_Potter

Well-Known Member
May 26, 2019
83
1,873
Time online
3d 12h 26m
Credits
91
#4
না জানলে বলে দেই ইয়াসমিন ম্যাম স্যারের সহধর্মিনী।
জ্বি,ভাইয়া।।।সেটা আমার জানা আছে।তবে ম্যাম যে বইও লিখেছেন সেটা আমার জানা ছিল না।
 

Riju#18

Well-Known Member
May 16, 2019
144
3,620
Time online
3d 14h 30m
Credits
6,246
#5
খুব ভালো রিভিউ। বইটি না পড়েও বইটির সম্পর্কে,বিষয়বস্তুর সম্পর্কে একটা পরিষ্কার ধারণা পাওয়া সম্ভব আপনার রিভিউ পড়ে। বইটি কি সফটকপি পাওয়া যায়? আমি বইটি পড়তে আগ্রহী।
 

suvom

Western Lover
Staff member
Moderator
Uploader
Mar 16, 2013
494
308,152
Time online
2d 18h 41m
Credits
6,381
#6
অসংখ্য ধন্যবাদ বিষয়টি মনে করিয়ে দেয়ার জন্য। আমি খেয়ালেই ছিল না, ওগুলো যে বাদ পড়ে গেছে। যোগ করে দিলাম। বইটি কিন্তু আসলে জাফর ইকবাল স্যারের না। না জানলে বলে দেই ইয়াসমিন ম্যাম স্যারের সহধর্মিনী। ব্যক্তিগত জীবনে স্যার যেমন চুপচাপ বা বলা যায় গম্ভীর- ম্যাম তার ঠিক উল্টো, প্রানোচ্ছল আর প্রয়োজনে প্রচন্ড ঘাড়ত্যাড়া (এর থেকে ভাল কোন শব্দ খুঁজে পেলাম না)। তার বইতেও তার অনেক উদাহরন পাবেন।
ঘারত্যাড়া ঠিক আছে। ঘোষণা দিয়ে এক দিনের মধ্যে রেজাল্ট পাবলিশ করার মানুষ সে। উনার সময়েই পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ সে সময়ে সেশনজট কমিয়ে এনেছিল। আমারও সামনে থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। যদিও ক্লাস করা হয় নাই।

কয়েকদিন আগে একটা ব্যাংকের ভাইভা দেয়ার সময় ম্যামের গবেষণা নিয়ে প্যাচাইছে। সবাই বিষয়টাকে খুব ইতিবাচক হিসেবে দেখছে। মোটামুটি ভাইবার মাক্সিমাম টাইম তাঁর বিষয় নিয়ে কথা বলেছে। পেটেন্ট পাইলে সেটা দেশের জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে।
 

Forum statistics

Threads
3,401
Messages
34,493
Members
58,227
Latest member
firojbd24

Online statistics

Members online
9
Guests online
47
Total visitors
56

User Menu

About File Sharing

  • আমাদের ওয়েবসাইট কোন ফাইল হোস্ট করে না। কপিরাইট নিয়ে অভিযোগ থাকলে সরাসরি যিনি ফাইলটি শেয়ার করেছেন এবং যেখানে ফাইলটি হোস্ট করা হয়েছে তাদের সাথে যোগাযোগের অনুরোধ করা হল। এই ওয়েবসাইট একট সোশ্যাল ফোরাম মাত্র। এখানে যারা পোস্ট করেন, তাদের পোস্টের জন্য শুধুমাত্র তারাই ব্যাক্তিগতভাবে দায়ী। Banglapdf.net কোন প্রকার কন্টেন্টের দায়ভার নিবে না। ধন্যবাদ।